ভুড়ি রান্না অনেক কষ্টসাধ্য হলেও খেতে কিন্তু দারুণ মজা। আমি খুব সহজ ভাবে দিচ্ছি।
প্রথমে ভুড়ি পরিষ্কার করে নিতে হবে। তারপর ভুড়ি রান্না করার জন্য একটি প্যানে আধা কাপ তেল গরম করে তাতে দিয়ে দিতে হবে দুইটা তেজপাতা, দুই টুকরো দারুচিনি, কয়েকটা এলাচ ও লবঙ্গ। একটু ভেজে দিয়ে দিন তিন কাপ পরিমাণ পিঁয়াজ কুচি। ভাজতে থাকুন যতক্ষণ না পিঁয়াজের কালার হালকা গোল্ডেন না হয়। পিঁয়াজের কালার চলে আসলে এতে দিয়ে দিতে হবে হাফ চামচের মতো আদা-রসুন বাটা ও স্বাদ মতো লবণ।
তারপর এতে দিয়ে দিতে হবে দুই টেবিল চামচ হলুদ, এক টেবিল চামচ মরিচ গুঁড়ো, এক টেবিল চামচ ধনে গুঁড়ো, হাফ টেবিল চামচ জিরা গুঁড়ো আর টেলে নেয়া জিরা গুঁড়ো এক টেবিল চামচ। এবার মশলাটা ভালোভাবে নেড়েচেড়ে মিশিয়ে নিয়ে এতে হাফ কাপ পানি দিয়ে মশলা কষিয়ে নিতে হবে। মশলা কষে তেল উপরে উঠে আসলে এতে দিয়ে দিতে হবে ভুড়ির টুকরোগুলো, ভালোভাবে মিশিয়ে ঢেকে দিতে হবে মিনিট দশেকের জন্য চুলা হাই হিটে রেখে। দশ মিনিট পর ভুরি থেকে পানি বের হয়ে আসলে আবার ভুড়িগুলো নেড়েচেড়ে এতে দিয়ে দিতে হবে দুই কাপ পানি। এই পর্যায়ে চুলার আচ মিডিয়াম হিটে রেখে ঢেকে দিন ঘণ্টা খানেকের জন্য।
এক ঘণ্টা পর চুলার আচ বাড়িয়ে নিয়ে ভুড়ি নেড়ে নেড়ে ঝোল শুকিয়ে নিতে হবে। ঝোল শুকিয়ে মাখা মাখা হয়ে আসলে ভুড়ি খাওয়ার উপযোগী হয়ে যাবে। কিন্তু ভুড়ি বা বট সাধারণত কালচে করে ভেজে খাওয়া হয়। তাই অন্য চুলা হাই হিটে রেখে ফ্রাইপ্যান গরম করে নিয়ে গরম প্যানে ভুড়িটা দিয়ে তাতে সামান্য টেলে নেয়া জিরা গুঁড়ো ও সামান্য গোলমরিচের গুঁড়ো দিয়ে ভাজতে থাকুন। ভাজতে ভাজতে ভুরির কাঙ্ক্ষিত কালার চলে আসলে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন ভাত, রুটি বা পরোটার সাথে।

রেসিপি: কামরুন নেসা পলি
প্রতিষ্ঠাতা
রঙিন হাড়ি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here