দেশসেরা খুদে প্রোগ্রামারদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হলো তিনদিনব্যাপী ন্যাশনাল হাইস্কুল প্রোগ্রামিং ক্যাম্প। তিনদিনব্যাপী প্রোগ্রামিং ক্যাম্পের সমাপনীতে অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের পরিচালক ( প্রশিক্ষণ ও উন্নায়ন) মোহাম্মদ এনামুল কবির। গত ১৮ জুন থেকে শুরু হওয়া এই ক্যাম্পে ন্যাশনাল হাইস্কুল প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা (এনএইচএসপিসি) ২০২১ এ প্রোগ্রামিং এবং কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী সেরা ৮০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

এই ক্যাম্পে এনএইচএসপিসি প্রতিযোগিতার প্রোগ্রামিং সমস্যা সম্পর্কে বিশদ আলোচনার পাশাপাশি প্রোগ্রামিং এলগারিদম,ডাটা স্ট্রাকচারসহ প্রোগ্রামিং সমস্যা সমাধানের কৌশল নিয়ে শিক্ষার্থীদের ধারনা দেয়া হয়। প্রোগ্রামিং ক্যাম্পের সমাপনী অনুষ্ঠানের শুরুতে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা তাদের নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করে। বরিশাল জিলা স্কুলের ছাত্র ধ্রুব মণ্ডল বলে,প্রোগ্রামিং একটা মানুষের জীবনে কতটা বেশি প্রয়োজনীয়,এ ক্যাম্পে অংশ নিয়ে তা উপলব্ধি করতে পেরেছি।তবে, স্বশরীরে ক্যাম্প করলে সারা দেশের বন্ধুদের সাথে বন্ধুত্ব সৃষ্টি হত,এটা সবাই মিস করছে।
প্রথম বারের মতো কোন প্রোগ্রামিং ক্যাম্পে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়ে খুলনার সরকারী ইকবালনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী সামিরা তাসনিম ক্যাম্পের আয়োজকদের ধন্যবাদ জানায়।মানিকগঞ্জের দ্য হলি চাইল্ড স্কুলের অনন্য যারিফ বলে, এ ক্যাম্পের অভিজ্ঞতা আমাদেরকে প্রোগ্রামিং জগতে অনেক দূরে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।বরিশাল ক্যাডেট কলেজের রাগিব সরকার উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি এমন আয়োজন ভবিষ্যতে অব্যাহত রাখার জন্য অনুরোধ জানায়।

ক্যাম্পে উপস্থিত হয়ে বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান আগামীতে আরো বড় পরিসরে এমন আয়োজনের পাশাপাশি এখন থেকে প্রতি দুইমাস পরপর ক্যাম্প আয়োজন করার আশাবাদ ব্যাক্ত করেন। তিনি উপস্থিত শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিং এ আরো বেশি উৎসাহিত করার জন্য স্কুল জীবন থেকে প্রোগ্রামিং চর্চার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। এর পাশাপাশি স্কুল জীবন থেকে শুধু প্রোগ্রামিং চর্চা করে প্রতিষ্ঠিত কয়েকজন প্রোগ্রামারদের গল্পও শোনান তিনি।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের পরিচালক ( প্রশিক্ষণ ও উন্নায়ন) মোহাম্মদ এনামুল কবির ক্যাম্পে অংশ নেয়া শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন,বর্তমান কোভিড সময়ে সামনাসামনি দেখা না হওয়ার একটা হতাশা সবার মধ্যে কাজ করছে। তবে, এ সময়ের আশীর্বাদ হল প্রযুক্তি,যার সাহায্যে আজকের এই ক্যাম্পের আয়োজন করা সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, সারাদেশে প্রায় ১৮০০০ সরকারি অফিসে তথ্য আদান-প্রদান করার জন্য প্রযুক্তির ব্যাবহার করা হচ্ছে।আমাদের দেশের প্রোগ্রামার বা ওয়েবসাইট রক্ষনাবেক্ষণকারীদের কাজের এক নতুন ক্ষেত্র হতে পারে এটা। এর পাশাপাশি তিনি আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন,অনলাইন প্লাটফর্ম জুমের মত দেশীয় প্রযুক্তি উপহার দিবে আজকের এই খুদে প্রোগ্রমাররাই।

তিনদিনব্যাপী এ ক্যাম্প পরিচালনা করেন অবিচল ইন্টেলিজেন্ট টেকনোলজিসের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার তারিফ এজাজ, সলিউশন ক্যাট লিমিটেডের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার অমিত সরকার এবং অবিচল আইটির সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার সাজিয়া আননূর ।

উল্লেখ্য, ‘জানুক সবাই দেখাও তুমি’-এই স্লোগানকে সামনে রেখে শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রোগ্রামিং সংস্কৃতি চালু করার লক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে অনলাইনেই আয়োজিত হয় এ বছরের ন্যাশনাল হাইস্কুল প্রোগ্রমিং প্রতিযোগিতা। সারা দেশের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনলাইন প্রস্তুতি প্রতিযোগিতা,অনলাইন মহড়া প্রতিযোগিতা ও অনলাইন ন্যাশনাল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ন্যাশনাল প্রতিযোগিতায় দেশের সকল জেলা এবং ৪৪৪ উপজেলা থেকে ১১৬৯৩ জন শিক্ষার্থীরা চার ঘণ্টাব্যাপী প্রোগ্রামিং এবং আধাঘন্টাব্যাপী কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। ন্যাশনাল প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্য থেকে সেরা ৮০ শিক্ষার্থী এই ন্যাশনাল প্রোগ্রামিং ক্যম্পে অংশ নেয়।

প্রসঙ্গত,ন্যাশনাল হাইস্কুল প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার আয়োজক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল। বাস্তবায়ন সহযোগী বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (বিডিওএসএন)।

বিস্তারিত জানা যাবে www.nhspc.net ঠিকানায় অথবা আয়োজনের ফেসবুক পেজ fb.com/nhspcbd

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here